BangaliNews24.com

বুলবুলের নুতন দিন এনে দিয়েছে বাংলার আপেলে

বুলবুলের নুতন দিন এনে দিয়েছে বাংলার আপেলে
জুন ০৩
১৬:৫৩ ২০১৮

বুলবুলের নুতন দিন এনে দিয়েছে বাংলার আপেলে
বাগানে পেয়ারা গাছের চাষ করছেন বুলবুল – বাঙ্গালিনিউজ২৪
বাঙ্গালিনিউজ২৪ নিউজ ডেস্ক -রাজশাহীর বুলবুল  , এসএসসি পাস করার পর অর্থাভাবে আর লেখাপড়া হয়নি। কিছু কৃষি জমি ছিল একমাত্র সম্বল। কিন্তু হাতে টাকা না থাকায় জমিতে চাষাবাদও করতে পারিনি। পরে ব্যাংক থেকে মাত্র ৪০ হাজার টাকা ঋণ নেই।থাই বারী-৩ জাতের চারা সংগ্রহ করে পেয়ারা চাষ শুরুকরি। এখন আমার ১৫ বিঘা জমির পেয়ারার বাগান রয়েছে। যেখান থেকে বছরে ১০ লাখ টাকার ওপরে ব্যবসা হয়। এই পেয়ারা আমার ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়ে দিয়েছে। বেকারত্ব ঘুচিয়ে শক্ত হয়ে দাঁড়ানোর সুযোগ করে দিয়েছে’।
তবে কেবল বুলবুলই নন, অনেক বেকার যুবকের ভাগ্যের তালা খুলছে ‘থাই পেয়ারা’। এই অঞ্চলের জমি অন্যান্য স্থানের চেয়ে উঁচু। তাই অপেক্ষাকৃত উঁচু জমিতে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে দুবছর থেকে থাই বারী-৩ ও বারী-৫ জাতের পেয়ারার চাষ বেড়েছে।
বুলবুল আরও জানান, বরেন্দ্র অঞ্চলের মিষ্টি স্বাদের পেয়ারার চাহিদা এখন দেশ জুড়েই। তবে এই পেয়ারার জন্য এখন তিনি ঢাকায় বেশ পরিচিত। তার চাষ করা পেয়ারা ঢাকার কারওয়ান বাজার ও যাত্রাবাড়ীতে সরাসারি পাঠানো হয়। এছাড়াও বিভিন্ন স্থান থেকে পাইকাররা আসেন তার কাছে। পেয়ারা ভাঙার পর বাগান থেকেই দর-দাম করে কভার্ডভ্যানে করে নিয়ে চলে যান। এছাড়া রাজশাহীর বাজারেও পেয়ারা সরবরাহ করেন তিনি। একটা সময় ছিল যখন নির্দিষ্ট মৌসুম ছাড়া পেয়ারা পাওয়া যেতনা। কিন্তু থাই পেয়ারা নতুন এই জাত উদ্ভাবনের পর এখন সারা বছরই পেয়ারা পাওয়া যায়। চাষও হয় বছর জুড়ে। তবে মৌসুমের চেয়ে অসময়ের পেয়ারার দাম বেশি। এ জন্য পেয়ারা চাষিদের লাভও বেশি হয়। সাধারণত আষাঢ়-শ্রাবণ এই দুই মাস পেয়ারার ভরা মৌসুম।

অন্যান্য খবর

BangaliNews24.com