BangaliNews24.com

পীরগঞ্জে ক্ষমতার দাপটে উত্তপ্ত ইউনিয়ন পরিষদ

পীরগঞ্জে ক্ষমতার দাপটে উত্তপ্ত ইউনিয়ন পরিষদ
অগাস্ট ১০
১৪:৩৫ ২০১৮

এস এম রাফাত হোসেন বাঁধন, বিশেষ প্রতিনিধি : থানীয় সরকার বিভাগের মাধ্যমে এলজিএসপি-৩ এর ১৫টি প্রকল্পের প্রায় ১ কোটি টাকা আত্মসাৎ সহ বয়স্কভাতা,বিধবাভাতা ও হতদারিদ্র এর জন্য খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির চাল বিতরণে ব্যাপক অনিয়ম ও দূর্নীতির রাজত্ব কায়েম করে আসছেন রংপুরের পীরগঞ্জের ১ নং চৈত্রকোল এর প্রভাবশালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জিয়াউর রহমান সবুজ।ইউপি সদস্যদের কোন প্রকার ভাতা প্রদান না করে নিজেই ক্ষমতার দাপটে আত্মসাৎ করছেন এমন অভিযোগ সংশ্লিষ্টদের।

রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলায় গত ৩১ শে মার্চ ২০১৬ সালে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের পর থেকে বেপরোয়া ভাবে একনায়কতন্ত্রে রাজত্ব কায়েম করে আসছে ১নং চৈত্রকোল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জিয়াউর রহমান সবুজ। সরেজমিনে জানা যায়-তার বিরুদ্ধে শুধু এলজিএসপি-৩ এর ১৫টি প্রকল্পের ১ কোটি টাকাসহ ইউনিয়ন পরিষদের বিভিন্ন ফান্ডের টাকা আত্মসাৎ ও ক্ষমতার অপব্যবহার করছে এমনটাই অভিযোগ ইউপি সদস্যদের।ইউপি সদস্য মোকতার,শাহআলম ও মোফাজ্জাল হোসেন জানায়-“আমরা ইউনিয়ন পরিষদের জন্য কিছুই করতে পারিনি।পারিনি কাউকে কোন প্রকার বয়স্কভাতা, বিধবাভাতা ও হতদারিদ্র এর জন্য খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির চালের কোন কার্ড করে দিতে।বরং আমাদের জন্য সরকারি ভাতাও বন্ধ করে দিয়েছে ইউপি চেয়ারম্যান।প্রতিটি সরকারী অফিসে আমরা অভিযোগ প্রদান করেছি কিন্তু কোন প্রকার সুরাহা আমরা পাই নাই ,তাই আমরা দ্রুত এর সমাধান প্রত্যাশা করছি।”এছাড়া মহিলা সদস্য নারী সদস্য গণ জানান- নির্বাচিত হওয়ার পর আমরা কিছুই পায়নি।ইচ্ছে ছিলো আমরা জনগণের সেবা করবো সেটা মনে হয় আর আমাদের কপালে জুটবে না।

প্রধানমন্ত্রীর মূল স্লোগান -“ শেখ হাসিনার বাংলাদেশ,ক্ষুধা হবে নিরুদ্দেশ”তার মূলমন্ত্রকে বৃদ্ধা আঙ্গুল দেখিয়ে ইচ্ছেমত পরিষদের কোন প্রকার রেজুলেশন ছাড়াই বয়স্কভাতা,বিধবাভাতা,টিআর,খাবিখা প্রদান সহ ইউপির সকল সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত করেছে এলাকাবাসীকে।অত্র এলাকার ১,২,৫ ও ৭ নং ওয়ার্ডেও বাসিন্দাদের সাথে কথা বলে জানা যায় – “হামাক তোরা ৩ হাজার ট্যাকা দ্যাও,তোমার বয়স্কভাতা হবে,আর হামার বয়স্ক ভাতার ট্যাকা তোরা তুলি নিবার পারমেন বলে জানায় এক বৃদ্ধ।বহু কার্ড তারা বিক্রি করি খাইছে,৫০০ ট্যাকা দিলে বিধবা ভাতার কার্ড করে দিবে বলে অভিযোগ করেন এক বৃদ্ধ মহিলা।
এ বিষয়ে অভিযুক্ত চেয়ারম্যানের সাথে সরাসরি কিংবা মুঠোফোনে যোগাযোগ করতে চাইলে কিংবা কথা বলতে চাইলে নানান অজুহাত দেখিয়ে কথা বলতে রাজী হয়নি তিনি।

অভিযুক্ত চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা পেয়ে দ্রুত আইনী ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস প্রদান করেন রংপুর জেলা প্রশাসক জনাব এনামুল হাবীব। দূর্নীতিবাজ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করে ১নং চৈত্রকোল ইউপিকে “দূর্নীতি মুক্ত” পরিষদ ঘোষণা করবে এমনটাই প্রত্যাশা ইউপি সদস্য ও এলাকাবাসীর।

অন্যান্য খবর

BangaliNews24.com