BangaliNews24.com

দেশের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে কনটেন্ট ফিল্টারিংয়ের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার

দেশের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে কনটেন্ট ফিল্টারিংয়ের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার
অগাস্ট ১২
২২:০৭ ২০১৮

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক: সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে গুজব, অপপ্রচার, বিকৃত ছবি ও ভিডিও প্রচার রোধে কনটেন্ট বা ইনফরমেশন ফিল্টারিংয়ের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এই উদ্যোগের বাস্তবায়ন হলে ফেসবুক, টুইটার, ইউটিউবসহ অন্যান্য সামাজিক মাধ্যমে কোনও বাজে পোস্ট দিলে বা গুজব ছড়ানোর মতো কোনও তথ্য প্রকাশ করলে তা মনিটরিংয়ের দায়িত্বে থাকা সংস্থা দ্রুত সরিয়ে দিতে বা মুছে ফেলতে পারবে। এমনকি ব্লকও করতে পারবে। এছাড়া যারা এগুলো করবেন তাদেরও দ্রুত চিহ্নিত করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে বলে জানা গেছে।

এটি বাস্ববায়িত হলে চাইলেও কেউ সহজে গুজব ছড়াতে পারবে না। ‘সাইবার সিকিউরিটি ও মনিটরিং’ নামের এই প্রকল্পের জন্য এরই মধ্যে যন্ত্রপাতি ও সফটওয়্যার কেনা হয়েছে। হার্ডওয়্যার সেটআপ করতে দুই থেকে আড়াই মাস এবং সফটওয়্যার ইন্সটল করতে মাস খানেকের মতো সময় লাগতে পারে। আগামী ৩-৪ মাসের মধ্যে তা চালু করা যাবে বলে জানা গেছে। ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগই বাস্তবায়ন করছে প্রকল্পটি। সরকার আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগেই তা চালুর ব্যাপারে শতভাগ সচেষ্ট বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

এদিকে ফেসবুককে সক্রিয় করার উদ্যোগও নিয়েছে সরকার। ফেসবুকের মাধ্যমে ছড়ানো গুজব, অপপ্রচার কী পরিমাণ ক্ষতিকর, কী ধরনের বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে তা দেশে সম্প্রতি ঘটে যাওয়া ঘটনা উলে­খ করে এরই মধ্যে ফেসবুককে জানানো হয়েছে। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। সরকারের পক্ষ থেকে ফেসবুকসহ অন্যান্য মাধ্যমগুলোতে যে কনটেন্ট ফিল্টারিং হবে সে তথ্যও ফেসবুক কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে চাওয়া বিষয়গুলোর প্রতি একাত্মতা প্রকাশ করেছেন ফেসবুকের এক কর্মকর্তা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ফেসবুক, ভিডিও শেয়ারিং পোর্টাল ইউটিউব, মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটারসহ বিভিন্ন ধরনের ব্লগ ও ওয়েবসাইটও মনিটরিংয়ের উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

অন্যান্য খবর

BangaliNews24.com