BangaliNews24.com

যে পরিবার এখন পঙ্গু

যে পরিবার এখন পঙ্গু
জুন ১৭
১৩:০১ ২০১৮

নিজস্ব প্রতিনিধি :
আমি সেই পরিবারের কথা বলছি !!!!
মানবতার ঈদ আনন্দ নেই যে পরিবারে!!!!!!!

ঈদ আনন্দে যখন আত্মহারা বাংলার প্রতিটি মুসলিম পরিবার , ঠিক এমনই একটি দিনে অস্বাভাবিক যন্ত্রনায় ঘরের কোনে কাতরাচ্ছে পিতৃহীন সহদর তিন ভাই ।

ঈদ আনন্দের ছিটা ফোঁটা পৌছাতে পারছেনা অসহায় পরিবারটিতে।এ এক হৃদয় বিদারক দৃশ্য সঙ্গে এক অসহায় পরিবারে অসহায় মায়ের আহাজারি ,কান্নাজড়িত আর্তনাদ।যেটি ভাষায় প্রকাশ করা আমার পক্ষে অসম্ভব ।

আমি সেই পরিবারের কথা বলছি !!!!

যে পরিবারের পিতৃহীন সহদর তিন ভাই আর কখনওই স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারবেনা। যাদেরকে করে ফেলা হয়েছে পঙ্গু । যদিও হত্যার চেষ্টা করা হয়েছিলো কিন্তু বিধাতার কৃপায় তিন সহদর প্রাণে বাঁচলেও আজ তারা পঙ্গু ।

যাদের আয়ের পথ বন্ধ ,পরিবারের তিনজন উপার্জন ক্ষম ব্যক্তির আজ এই বেহাল দসা করা হয়েছে, কেটেফেলা হয়েছে তিন সহদরের হাত।

কোথায় এই পরিবার ?

সিরাজগঞ্জে বেলকুচি উপজেলার তামাই গ্রামে মৃত আঃ মান্নান খানের তিন পুত্র সন্তানকে করা হয়েছে পঙ্গু ।

কোথায় ? কি জন্য ? কারা ঘটিয়েছে এই লোমহর্সক বরবরচিত ঘটনা?

সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলার তামাই গ্রামে গত ০৮ এপ্রিল ২০১৮ ভোর বেলা গ্রামের দক্ষিন পাড়া আহতদের নিজ বাড়ির পাশে রাস্তায় নিরস্র অবস্থায় ডেকে নিয়ে ১০\১৫ জনের দেশীয় অস্রে সজ্জিতো একটি সন্ত্রাসি দল এ বরবর ঘটনাটি ঘটিয়েছে।

স্থানীয় একটি মৎস্য খামার ইজারা নেয়াকে কেন্দ্র করে ঘটনাটি ঘটানো হয়েছে বলে স্থানীয়রা জানান।
তবে আসামী পক্ষ ঘটনাটিকে মাদক বলে চালিয়ে দেবার
পায়তারা প্রথম থেকেই করে যাচ্ছে ।

দিনের বেলা জন সম্মুখে ঘটনাটি ঘটানো হয়েছে বলে এর স্পষ্ট স্বাক্ষী প্রমান রয়েছে । ঘটনার পরপর সহকারী পুলিশ সুপার ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেন ,পেয়েযান স্বাক্ষী প্রমান । তবে মামলার এজাহারে বেশ কিছু আসামীর নাম বাদ পরেছে বলে তিনি বলেন ।

এদিকে ঘটনার পর তিন ভাইকে চিকিৎসার জন্য সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক গন অপারগতা প্রকাশ করে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন ।

পঙ্গু হতে চিকিৎসা দিয়ে ২জনকে শমরিতায় ও১ জনকে হৃদরোগ হাসপাতালে পাঠানো হয় । সেখানে ২ মাস চিকিৎসা নেবার পর ৬ বার তাদের শরীরে অস্রপ্রাচার করা হয় । সেখানে চিকিৎসা দেবার পরে আবার পঙ্গু হাসপাতালে পাঠান চিকিৎসক ।

যে খানে ব্যয় হচ্ছে প্রচুর অর্থ,যার যোগান তাদের আত্বিয় পরিজনের নিকট থেকে সংগ্রহ করা হলেও আরও বেশ কয়েক বার অস্রপাচার করা বাদ রয়েছে যা কিনা অর্থ অভাবে করা সম্ভব হচ্ছেনা বলে আহতদের মা জানান ।

এঘটনায় সহদরদের এক জনের স্ত্রী বাদি হয়ে ১\ মোঃ জিন্না প্রাং ২\ ইয়াছিন মোল্লা ৩\আমির হামজা প্রাং ৪\গোলাম শফি প্রাং৫\ আবুনুর ফকির সহ অজ্ঞাত আরও অনেকে বলে বেলকুচি থানায় একটি মামলা দায়ের করেন ।চলমান আছে বেলকুচি থানাতে এটেম টু মাডারের একটি মামলা ।

আহতদের অসহায় মাতা আজ ঈদের দিনে আবেগে আপ্লুত হয়ে কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন ূূূ

“যে সন্ত্রাসীরা আমার ছেলেদের পঙ্গু করে দিলো তারা আজ অর্থের উপরে জামিন নিয়ে আমাদের সামনে দিয়ে ঘুরে বেরাচ্ছে ,আমাদের নানা ভয়ভিতি দেখাচ্ছে ।

ঈদ আনন্দে আসামীরা আজ আত্মহারা,
এদিকে দেখেন আমরা দুঃখে কষ্টে দিসেহারা ।
এই গ্রামের মুরুব্বিরাই আসামীদের পক্ষ নিয়ে তাদের বাঁচানের চেষ্টা করছে, চার্জসিট দুর্বল করে দেবার
জন্য স্থানীয় এমপিকে দিয়ে থানায় পেশার দিচ্ছে ।

দিচ্ছে প্রচুর অর্থ । যে টিতে আমরা অক্ষম ।
এই পিরিস্থিতিতে আমরা সঠিক বিচার পাব না ।আল্লার কাছে ফরিয়াদ যারা আমার তিন পিতৃহীন সন্তানকে পঙ্গু করে দিল, যারা তাদের ইন্দন দিচ্ছে তুমি এদের উচিত বিচার কর ।”

অন্যান্য খবর

BangaliNews24.com