BangaliNews24.com

১৪৪টি হজ এজেন্সির অনিয়মের কারণে সাড়ে ২৬ হাজার যাত্রীর হজ পালন অনিশ্চিত

১৪৪টি হজ এজেন্সির অনিয়মের কারণে সাড়ে ২৬ হাজার যাত্রীর হজ পালন অনিশ্চিত
জুলাই ১৭
২২:১২ ২০১৮

বিশেষ প্রতিনিধি : চলতি বছর ১৪৪টি হজ এজেন্সির অনিয়মের কারণে সাড়ে ২৬ হাজার হজযাত্রীর পবিত্র হজ পালন অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। তাদের মধ্যে সাড়ে ১৩ হাজার জনকে বদলি কোটায় হজে পাঠানোর চেষ্টা করছে ৮৮টি এজেন্সি। এদিকে গতকাল সোমবার সুনির্দিষ্ট অভিযোগে ৫৬টি হজ এজেন্সিকে ডেকে ধর্ম মন্ত্রণালয়ে বৈঠক করেন ধর্ম সচিব আনিছুর রহমান। এসব এজেন্সি ১২ হাজার ৯৪৯ হজযাত্রীর বিমান টিকিট নিশ্চিত করেনি। ফলে এসব যাত্রীর পবিত্র হজ পালন নিয়েও অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

অভিযোগ উঠেছে, চিহ্নিত এসব এজেন্সি হজযাত্রী রেজিস্ট্রেশনের সময় ভুয়া নাম এন্ট্রি করে রেখেছিল। এখন তারা এন্ট্রি করা নামের হজযাত্রী অসুস্থ হয়ে পড়েছে কিংবা মারা গেছে জানিয়ে বা নিকটাত্মীয় দেখিয়ে অন্য হজযাত্রীদের পাঠানোর চেষ্টা করছে। তাদের বিমান টিকিট নিশ্চিত করা হয়নি। এমন হজযাত্রীর সংখ্যা ১২ হাজার ৯৪৯ জন। অভিযোগ, চিহ্নিত এসব হজ এজেন্সি হজ মৌসুমে প্রকৃত হজযাত্রীদের জিম্মি করে মানব পাচারের জন্যই বদলি কোটা বাড়ানোর দাবি করে। তবে সৌদি সরকারের কড়াকড়ি আরোপের কারণে এবার বদলি কোটা বাড়াতে পারছে না ধর্ম মন্ত্রণালয়। গত বছরও বদলি কোটায় হজে গিয়ে ফিরে আসেননি ১৮৩ হজযাত্রী। এ জন্য ৪৩টি হজ এজেন্সিকে সৌদি সরকার কালো তালিকাভুক্ত করে নিষিদ্ধ করেছে। ধর্ম মন্ত্রণালয় এজেন্সির মাধ্যমে হজের জন্য রেজিস্ট্রেশন করা কোনো হজযাত্রী মারা গেলে কিংবা গুরুতর অসুস্থ হলে তার সন্তান ও স্বামী-স্ত্রীর ক্ষেত্রে চার শতাংশ বদলি হজের কোটা সংরক্ষণ করে আসছে। চলতি বছরও এ কোটা সংরক্ষিত আছে। তবে হজ এজেন্সিস অব বাংলাদেশ (হাব) ও বাংলাদেশ হজযাত্রী কল্যাণ পরিষদ এ বছর বদলি কোটা ১৫ শতাংশ বাড়ানোর দাবি করছে। ধর্ম মন্ত্রণালয় সূত্র জানাচ্ছে, একটি চক্র অধিক মুনাফার জন্য হজযাত্রীদের জিম্মি করে নির্বিঘ্ন ও পরিচ্ছন্ন হজ কার্যক্রমকেই প্রশ্নবিদ্ধ করে ফেলছে।

আজ মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা ও দুপুর ২টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত দুই পর্বে সচিবালয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ধর্ম সচিব আনিছুর রহমান অভিযুক্ত ৮৮টি হজ এজেন্সির মালিক ও মোনাজ্জেমদের নিয়ে বৈঠক করেছেন। এসব এজেন্সিগু সাড়ে ১৩ হাজার বদলি হজযাত্রী নিয়ে টালবাহানা করছে। হজ অফিসের অনুমতি ছাড়াই তারা এদের আশকোনা হজ ক্যাম্পে নিয়ে এসেছেন।

এমন একজন হজযাত্রী সাতক্ষীরার তালার পাতারবিল এলাকার স্কুলশিক্ষক আফসার উদ্দিন। তিনি বলেন, তিনি রাজধানীর শান্তিনগরের খাজা হজ এজেন্সির মাধ্যমে নাম নিবন্ধনের পাশাপাশি পুরো টাকা পরিশোধ করেন। গত রোববার তাকে হজক্যাম্পে নিয়ে আসা হয়। তাকে আজ নয়, কাল ফ্লাইট বলে ঘোরানো হচ্ছে। তিনি এহরাম বেঁধে হজক্যাম্পে হজ ফ্লাইটের অপেক্ষায় সময় পার করছেন।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ হজযাত্রী ও হাজি কল্যাণ পরিষদের সভাপতি

ড. আবদুল্লাহ আল নাসের বাঙালিনিউজ২৪কে বলেন, গত বছর প্রথমে চার শতাংশ বদলি কোটা বাড়িয়ে ১৫ শতাংশ করা হয়। তারা এবার সেই ১৫ শতাংশ বদলি কোটা দাবি করছেন। যাদের বদলি কোটায় হজে যাওয়ার যৌক্তিক কাগজপত্র আছে, তাদের হজে পাঠাতে সমস্যা নেই। ১৫ শতাংশ কোটা না বাড়ালে এবার প্রায় সাড়ে ১৩ হাজার হজযাত্রী হজে যেতে পারবেন না।

হজ এজেন্সিস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব) মহাসচিব এম শাহাদাত হোসাইন তসলিম বাঙালিনিউজ২৪কে বলেন, বাংলাদেশে প্রবীণ হজযাত্রীর সংখ্যাই বেশি। ফলে হজের সব কার্যক্রম শেষ হওয়ার পর তাদের অনেকেই হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। এতে অনেক সময় তার সাথীরাও হজযাত্রা বাতিল করেন। এ ক্ষেত্রে বদলি হজের সুযোগ থাকলে হজ এজেন্সিগুলো রক্ষা পায়। স্বেচ্ছায় যারা হজে যেতে চাইছেন না, তাদের বদলে অন্য কাউকে বদলি কোটায় হজে পাঠাতে তো কোনো সমস্যা দেখি না। বদলি কোটায় হজযাত্রীরা না যেতে পারলে এজেন্সিগুলোর বিশাল ক্ষতি হবে। এ বিষয়ে গতকাল সোমবার ধর্ম মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের জনসংযোগ বিভাগের মহাব্যবস্থাপক শাকিল মেরাজ বলেন, হজযাত্রীদের টিকিট কাটার জন্য সংশ্নিষ্ট এজেন্সিগুলোকে বেশ কয়েকবার জরুরি নোটিশ দেওয়া হয়। কিন্তু তারা এখনও টিকিট নিশ্চিত বা পে-অর্ডার করেনি। অথচ এ বছর সৌদি সরকার বিমানের আর কোনো স্লট বাড়াচ্ছে না। ফলে এক ধরনের অনিশ্চয়তা তৈরি হচ্ছে।

এ বছর পবিত্র হজে যাচ্ছেন এক লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন ধর্মপ্রাণ মুসলমান। তাদের মধ্যে ৬৩ হাজার ৬৫১ হজযাত্রী পরিবহন করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। অন্যদের পরিবহন করবে সৌদিয়া এয়ারলাইন্স। ১৪ জুলাই থেকে শুরু হওয়া এবারের হজযাত্রা এখন পর্যন্ত নির্বিঘ্ন ও ভোগান্তিহীনভাবেই চলছে। ফ্লাইট সিডিউল ঠিক থাকায় হজযাত্রীরা নির্দিষ্ট সময়েই জেদ্দার উদ্দেশে ঢাকা ছাড়ছেন।

অন্যান্য খবর

BangaliNews24.com