BangaliNews24.com

আসছে ‘মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেস’ নামের নতুন ৩১তম আন্তঃনগর ট্রেন

আসছে ‘মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেস’ নামের নতুন ৩১তম আন্তঃনগর ট্রেন
জুলাই ২২
০০:৩৮ ২০১৮

বাঙালিনিউজ২৪ ডেস্ক : ভাটি বাংলার রাজধানী খ্যাত নেত্রকোনার প্রাচীন জনপদ মোহনগঞ্জে চালু হচ্ছে আরও একজোড়া নতুন আন্তঃনগর ট্রেন। ‘মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেস’ নামে গারো পাহাড়ের পাদদেশ ঘেঁঘা এ জনপদে আসা-যাওয়া করবে রেলওয়ের ৩১তম আন্তঃনগর ট্রেনটি।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সবশেষ রেলওয়ের বহরে আন্ত‍ঃনগর সোনার বাংলা এক্সপ্রেস য‍ুক্ত হয়েছে। আগামী ৮ সেপ্টেম্বর থেকে ঢাকা-মোহনগঞ্জ-ঢাকা রুটে মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেস চলাচল করবে। এটিই হবে সর্বশেষ আন্তঃনগর ট্রেন।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, ৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নতুন ট্রেনটি উদ্বোধনের কথা রয়েছে। ইন্দোনেশিয়া থেকে আনা নতুন মিটারগেজ কোচ দিয়ে চলবে ট্রেনটি।

শিগগির এসব কোচ কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের ওয়াশপিটে আনা হবে। প্রয়োজনীয় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা শেষে এটিকে প্রস্তুত করা হবে যাত্রার জন্য।

প্রতিদিন ঢাকা থেকে ছেড়ে ট্রেনটি বিমানবন্দর, জয়দেবপুর, গফরগাঁও, ময়মনসিংহ, গৌরীপুর, শ্যামগঞ্জ, নেত্রকোনা, ঠাকুরাকোনা, বারহাট্টা হয়ে মোহনগঞ্জ আসা যাওয়া করবে।

কর্মকর্তারা বলছেন, ঢাকা-মোহনগঞ্জ রুটের নতুন ট্রেনটি ৮ সেপ্টেম্বর দুপুর ১২ টা ২০ মিনিটে কমলাপুর স্টেশন ছেড়ে যাবে। আর মোহনগঞ্জে সন্ধ্যা ৬টা ৫০টায় পৌঁছার পর ফের ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসবে ট্রেনটি।

‘নতুন ট্রেনটি ২টা ২০ মিনিটে ঢাকা ছাড়বে। আর মোহনগঞ্জ থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসবে রাত ১১টায়।’

ভাড়া প্রসঙ্গে কমলাপুর স্টেশনের ব্যবস্থাপক সীতাংশু চক্রবর্তী জানান, শোভন আসনের প্রতিটি টিকিটের মূল্য ১৮৫ টাকা, শোভন চেয়ারের ২২০ টাকা, এসি/স্নিগ্ধা ৪২৬ টাকা এবং প্রতিটি প্রথম বার্থ আসনের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৪৯০ টাকা।

‘১০ দিন আগে অনলাইনসহ এ ট্রেনের টিকিট পাওয়া যাবে।’

রেল ভবন সূত্র জানায়, মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেসে ৫৮ আসনের একটি এসি চেয়ার কোচ থাকবে। আর ২৭ আসনের থাকবে একটি প্রথম শ্রেণীর কোচ।

আর তিনটি শোভন চেয়ার কোচে ১৮০ টি, ৭ টি শোভন কোচে ৩৬০টি আসন থাকছে। আর একটি পাওয়ার কার ও একটি খাবার গাড়ি মিলিয়ে থাকবে আরও ৪০টি আসন।

কমলাপুর রেলস্টেশনের কর্মকর্তারা জানান, এ রুটে যাত্রী সংখ্যা অনেক। প্রতিদিনই হাওর এক্সপ্রেস ও মহুয়া কমিউটার ট্রেনে প্রচণ্ড ভিড় হয়। তবে এ ট্রেন চালু হলে আসন সংকট কিছুটা কাটবে।

যাত্রী চাহিদার কথা বিবেচনা করে এ ট্রেন চালু করায় নেত্রকোনাবাসীর দাবি পূরণ হচ্ছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

সেলিম আহমেদ নামে ওই রুটের এক যাত্রী বলেন, নতুন ট্রেন পাওয়ায় আমরা বেশ খুশি। এখন টিকিট কালোবাজারি বন্ধেও স্টেশনগুলোতে কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা নেওয়া জরুরি। কেননা সাধারণ যাত্রীরা স্টেশনে গিয়ে কোনো টিকিটিই পাননি।

বর্তমানে প্রায় ১৯০ কিলোমিটার দূরত্বের এ রেল রুটে আন্তঃনগর হাওর এক্সপ্রেস ছাড়াও মহুয়া কমিউটার চলাচল করে।

বৃহস্পতিবার সাপ্তাহিক ছ‍ুটি বাদে অন্য ছয়দিন রাত ১১টা ৫০ মিনিটে কমলাপুর ছেড়ে যায় হাওর, যা সকাল ৮টায় মোহনগঞ্জ পৌঁছায়।

এরপর ঢাকার উদ্দেশে মোহনগঞ্জ ছাড়ে সকাল ৮টা ৩৫ মিনিটে। আর প্রতিদিন সকাল ৮টা ২০ মিনিটে কমলাপুর স্টেশন ছেড়ে যায় মহুয়া এক্সপ্রেস।

রেলওয়ের মহাপরিচালক আমজাদ হেসেন বাঙালিনিউজ২৪কে বলেন, মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেস পুরাতন বগি দিয়েই চালানো হবে। এতে যাত্রী পরিবহনে রেলওয়ের সক্ষমতা বাড়বে।

‘ভবিষ্যতে আরও কোচ পেলে অন্যান্য রুটেও যাত্রী চাহিদা বিবেচনা করে নতুন ট্রেন চালু করা হবে। বর্তমানে ৩০টি আন্তঃনগর ট্রেনে গড়ে দৈনিক ২২ হাজার যাত্রী পরিবহন করছে রেলওয়ে।’

অন্যান্য খবর

BangaliNews24.com