BangaliNews24.com

গরমের শারীরিক সমস্যা, প্রাথমিক চিকিৎসা

গরমের শারীরিক সমস্যা, প্রাথমিক চিকিৎসা
জুলাই ২৪
১৭:০৫ ২০১৮

ডেস্ক প্রতিবেদন: গরম মানেই সমস্যা, ক্লান্তি আর নানা ভোগান্তি। অতিরিক্ত গরমে যেমন শরীরে পানিশূণ্যতা বেড়ে যায়, তেমনি বেড়ে যায় কিছু রোগের ঝুঁকিও। পাশাপাশি পেটে ব্যাথা, অতিরিক্ত ঘাম, চর্মরোগ জাতীয় সমস্যার ভোগান্তিতো আছেই। তাই বাধ্য হয়েই কিছু সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত, যাতে গরমের এই বিপদ থেকে নিজেকে রক্ষা করা যায়। পাশাপাশি গরমের কারণে দেখা দেওয়া কিছু সমস্যা ও তার প্রতিকারও জেনে রাখা উচিত।

আসুন জেনে নেই গরমের কারণে হওয়া কিছু সমস্যা ও তার প্রাথমিক চিকিৎসা:

হিট সিনকোপ
গরমে কায়িক পরিশ্রম বেশি হয়ে গেলে শরীরে পানিশূন্যতা হয়ে রক্তচাপ হঠাৎ কমে যেতে পারে, এতে অচেতন হয়ে পড়তে পারেন যেকেউ। আর এটিকেই মেডিকেল ভাষায় হিট সিনকোপ বলে। এ রকম ঘটনা ঘটলে আক্রান্ত ব্যক্তিকে দ্রুত ঠাণ্ডা জায়গায় শুইয়ে দিয়ে অতিরিক্ত পানিশূন্যতার ঘাটতি পূরণ করতে বেশি বেশি পানি, তরল খাবার, খাবার স্যালাইন ইত্যাদি খেতে দিন।

হিট ক্রাম্পস
অতি গরমে মাত্রাতিরিক্ত পরিশ্রম করলে শরীর থেকে ঘামের সঙ্গে অতিরিক্ত পানি ও লবণ বেরিয়ে শরীরের মাংসপেশিগুলোয় তীব্র ব্যথাসহ খিঁচুনি হয়; বিশেষ করে শরীরের বেশি ব্যবহৃত মাংসপেশিগুলোয় এ রকম সমস্যা হয়ে থাকে। একে হিট ক্রাম্পস বলে।

এ অবস্থায় আক্রান্ত ব্যক্তিকে দ্রুত অন্য স্থানে সরিয়ে বেশি করে খাবার স্যালাইন খেতে দিন। চিকিৎসকের পরামর্শে প্রয়োজনে শিরাপথে স্যালাইনের ব্যবস্থা করুন। আক্রান্ত ব্যক্তিতে এক থেকে তিন দিন পূর্ণ বিশ্রামে রাখুন।

হিট এক্সাসন
গরমের পর্যাপ্ত পানি না খেলে শরীর পানিশূন্য হয়ে দুর্বল হয়ে পড়ে পড়ে। এ অবস্থাকে হিট এক্সাসন বলে। এ সময় আক্রান্ত ব্যক্তির প্রচণ্ড শারীরিক দুর্বলতা, মাথাব্যথা, মাংসপেশিতে ব্যথা, বমি বমি ভাব বা বমি হওয়া, অতিরিক্ত পিপাসা ইত্যাদি উপসর্গ দেখা যায়। কখনো বা মানসিক অবস্থা লোপ পেতে পারে। সে এলোমেলো কথা বলতে পারে কিংবা অচেতন হয়েও যেতে পারে।

এ সময় আক্রান্ত ব্যক্তিকে দ্রুত ঠাণ্ডা জায়গায় সরিয়ে নিন। শীতল স্থানে বা ফ্যানের বাতাসের নিচে রাখুন। পর্যাপ্ত খাবার স্যালাইন ও অন্যান্য তরল খাবার খেতে দিন। প্রয়োজন হলে হাসপাতালে নিয়ে যান।

হিটস্ট্রোক
হিটস্ট্রোক একটি জীবন বিপন্নকারী শারীরিক অবস্থা, যাতে শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা মারাত্মকভাবে অকার্যকর হয়ে পড়ে। সাধারণত বয়স্ক লোক, শিশু, দীর্ঘমেয়াদি রোগাক্রান্ত ব্যক্তি, খোলা আকাশের নিচে কাজ করা শ্রমিকদের হিটস্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে। মাত্রাতিরিক্ত গরমে অতিরিক্ত পরিশ্রমের কারণে সাধারণত এটা হয়। এতে, আক্রান্ত ব্যক্তি হঠাৎ অচেতন হয়ে পড়ে, শরীরের তাপমাত্রা বেশি অর্থাৎ জ্বর থাকে, তবে কোনো ঘাম বের হয় না।

হিটস্ট্রোকে আক্রান্ত ব্যক্তিকে দ্রুত ছায়ামুক্ত স্থানে সরিয়ে নিন। শরীরের জামা-কাপড় খুলে ঠাণ্ডা পানিতে ভেজানো কাপড় দিয়ে পুরো শরীর বারবার মুছে দিন। রোগীকে শীতল ঘরে বা ফ্যানের বাতাসের নিচে রাখুন। হাত-পা এবং শরীরের সব মাংসপেশি ম্যাসাজ করান। সমস্যা খুব বেশি মনে হলে দ্রুত হাসপাতালে পাঠান।

অন্যান্য খবর

BangaliNews24.com