BangaliNews24.com

বিশ্বের প্রায় ১৭ কোটি নারী এন্ডোমেট্রিওসিসে আক্রান্ত

বিশ্বের প্রায় ১৭ কোটি নারী এন্ডোমেট্রিওসিসে আক্রান্ত
সেপ্টেম্বর ২৬
২১:৪৬ ২০১৮

স্বাস্থ্য ডেস্ক: পিরিয়ডের সময় তলপেটের অসহ্য যন্ত্রণা? কিংবা যৌন সঙ্গমের সময় সমস্যা হয়? এন্ডোমেট্রিওসিস নয় তো? কারণ, এন্ডোমেট্রিওসিস এ আক্রান্ত হলে এধরনের বৈশিষ্ট্য দেখা দেয়। তবে গ্রাম, শহর নির্বিশেষে অসংখ্য মহিলা এই এন্ডোমেট্রিওসিস সমস্যায় ভোগেন। কিন্তু এই অসুখের সম্পর্কে কোনও ধারণা না থাকার কারণে বিনা চিকিৎসাতেই কাটছে দিনের পর দিন। অজ্ঞতার কারণে দিনে দিনে মহামারির আকার নিচ্ছে এই রোগটি। বর্তমানে বিশ্বের প্রায় ১৭ কোটি ৬০ লক্ষ মহিলা এই এন্ডোমেট্রিওসিসের সমস্যায় ভুগছেন। জানা যাক যন্ত্রণাদায়ক রোগটির খুঁটিনাটি সম্পর্কে।

ঋতুস্রাব শুরুর আগে অল্পস্বল্প পেট ব্যথা প্রায় সকলেরই হয়। কিন্তু ব্যথা যদি সহ্যের সীমা ছাড়িয়ে যায়, তাহলে ব্যথা কমাতে যেমন তেমন পেইন কিলার না কিনে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া প্রয়োজন। পলিসিস্টিক ওভারি হলে সিস্ট থাকবেই। তবে এই সিস্টগুলি খুব একটা সমস্যা তৈরি করে না। কিন্তু সিস্টগুলি যদি রক্তে পরিপূর্ণ হয়, তাহলে এন্ডোমেট্রিওসিস-এর লক্ষণ।

জরায়ু বা ইউটেরাসের একটি আবরণ হল এন্ডোমেট্রিয়াম। বয়ঃসন্ধির সময় থেকে সন্তান ধারণের সময়কালে মেয়েদের জরায়ু বা ইউটেরাসের নানা পরিবর্তন ঘটে। ঋতুস্রাবের পর জরায়ুর মধ্যে থাকা এন্ডোমেট্রিয়াম আবরণটি ক্রমশ পরিপূর্ণতা পায়। এই সময়ে গর্ভবতী না হলে এন্ডোমেট্রিয়াম আবরণটি ক্রমশ জরায়ু থেকে ছিঁড়ে পড়ে যায়। ২৮ থেকে ৩০ দিনের মধ্যে এন্ডোমেট্রিয়াম আবরণটি জরায়ু থেকে খসে পড়ে গেলেই মাসিক বা ঋতুস্রাব শুরু হয়। এন্ডোমেট্রিওসিসে আক্রান্ত রোগীর জরায়ুর ভিতরে ছাড়াও এর বাইরের দিকে অস্বাভাবিক রক্তক্ষরণ হতে থাকে। আর এই কারণেই এই সময় তলপেটে অসহ্য ব্যথা করতে থাকে।

এন্ডোমেট্রিওসিসের সমস্যায় কী করণীয়?
এন্ডোমেট্রিওসিস এমনই এক অসুখ যা সম্পূর্ণ ভাবে সারিয়ে তোলা সম্ভব নয়। তবে ডায়বিটিস বা হাইপ্রেশারের মতো নিয়ম মেনে, নিয়মিত চিকিৎসার সাহায্যে এই অসুখ নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব। তবে প্রতি মাসে যদি ঋতুস্রাব বা পিরিয়ডের সময় তলপেটের অসহ্য যন্ত্রণা হতে থাকে তাহলে দেরি না করে কোনও স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞের সঙ্গে যোগাযোগ করা জরুরি।

অন্যান্য খবর

BangaliNews24.com