BangaliNews24.com

মাঝ পদ্মায় ডাম্প ফেরি ল্যন্টিনসহ কয়েকটি ফেরি ৪ঘন্টা আটকে থাকারপর উদ্ধার, লঞ্চ, স্পিডবোট চলাচল বন্ধ

মাঝ পদ্মায় ডাম্প ফেরি ল্যন্টিনসহ কয়েকটি ফেরি ৪ঘন্টা আটকে থাকারপর উদ্ধার, লঞ্চ, স্পিডবোট চলাচল বন্ধ
জুন ২৯
০১:০৭ ২০১৮

মাদারীপুর প্রতিনিধিঃ কাঠালাবাড়ি-শিমুলিয়া নৌরুটে মাঝ পদ্মায় ডাম্প ফেরি ল্যন্টিনসহ কয়েকটি ফেরি ৪ঘন্টা আটকে থাকারপর উদ্ধার, লঞ্চ, স্পিডবোট চলাচল বন্ধ । যানবাহনের পরিবর্তে ফেরিতে পার হচ্ছে যাত্রী, তিল ধরার ঠাই নেই।

প্রবল বাতাসে উত্তাল হয়ে উঠেছে পদ্মা নদী। পদ্মা উত্তাল থাকায় কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটে লঞ্চ, স্পিডবোট বন্ধ রয়েছে। ঢাকার উদ্দেশ্যে যেতে যাত্রীরা ঝুঁকছে ফেরিতে। যাত্রী চাপ বাড়ায় দেখা দিয়েছে ফেরি সংকট। যানবাহনের পরিবর্তে এখন যাত্রীদের পার করতে দেখা গেছে ফেরিগুলোকে। যাত্রীদের চাপে কোন ভাবে এখন ফেরিতে পরিবহন তোলা যাচ্ছে না। তাই দুপুর থেকে যে সকল ফেরি শিমুলিয়া ঘাট থেকে পরিবহন নিয়ে কাঠালবাড়ি ঘাটে আসার পর ঢাকা মুখি যাত্রী চাপে পড়ে ফেরিগুল। তাই ফেরিতে কোন ভাবে পরিবহন তোলা যাচ্ছে না। যাত্রী বোঝাই করে ফেরি গুলো কাঠালবাড়ি ঘাট থেকে ছেড়ে যেতে বাধ্য হচ্ছে।
এদিকে সকালে ঢেউয়ের আঘাতে শিমুলিয়া থেকে কাঁঠালবাড়ীতে আসার পথে মাঝ পদ্মায় ১৮জন যাত্রী নিয়ে ঢেউয়ের আঘাতে শামীম এন্টারপ্রাইজের একটি স্পিডবোট ডুবে যায় একটি স্পিডবোট ডুবে যায়। কতজন যাত্রীদের উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে তা জানা যায় নি। তবে কাঠালবাড়ি ঘাট কর্তৃপক্ষ দাবী করেন ডুবে যাওয়া সকল যাত্রীকে উদ্ধার করা হয়েছে। স্পিডবোটের মালিক মাওয়া পাড়ের শামীম মাদবর। দূর্ঘটনা কবলিত ওই স্পিডবোটটির চালক সুমন মিয়া বলে জানা গেছে ।
ফেরিতে আটকে থাকা শিমুলিয়াগামী ডাম্প ফেরি ল্যান্টিন যাত্রী ও পরিবহন নিয়ে পদ্মার চ্যানেলমুখে নোঙর করে আছে বলে ফেরিতে অবস্থানরত এক যাত্রী মুঠোফোনে জানিয়েছেন। সাদিক আশ্রাফ নামের ওই যাত্রী জানান, ‘বাতাস থাকা পদ্মায় প্রচন্ড ঢেউ রয়েছে। ঢেউ উপেক্ষা করে ফেরিটি চলতে না পারায় সকাল ৮.৩০ মিনিট থেকে ১.৩০ পর্যন্ত চ্যানেলে নোঙর করে রাখে।
ঘাটে আটকে পড়া বরিশালের যাত্রী নওরিন খানম জানান, সকাল সাড়ে ৯টায় কাঠালবাড়ি ঘাটে এসে পৌছেছি। বৈরি আবাহওয়ার কারনে সকাল থেকে লঞ্চ ও স্পিডবোট চলাচল বন্ধ করে সংশ্লিষ্টরা। তাই এখন ঘাট এলাকায়ই ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করতে হচ্ছে। এছাড়া পদ্মা উত্তাল কারনে নদীর মাঝে আটেকে পড়ে প্রায় ৪টি ফেরি। ওই সকল ফেরিতে অতিরিক্ত যাত্রী ও যানবাহন বোঝাই। সামান্য ঢেউয়ের ফেরি গুলো দোল খায়। এ সময় যাত্রীরা কান্না কাটি ও বেশি মাত্রা ছোটাছুটি করে। যে কারনে মূল নদী পাড়ি দিতে পারছে না।
বিআইডবিউটি এর কাঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌ রুটের দায়িত্বরত সকারী পরিচালক মোঃ শাহাদাত হোসেন জানান, আজ বুধবার সকাল থেকে বৈরি আবাওয়া দেখা দেয়। সকালে মাওয়া প্রান্তে প্রবল ঢেউয়ের আঘাতে স্পিবোটের তলা ফেটে যায়। যাত্রী নিয়ে বোট ডুবে যায়। ওই বোটে ১৮ যাত্রী ছিল। দ্রæত সকল যাত্রীকেই ঊদ্ধার করা হয়েছে। এ কারনে ৯টার কিছুপর থেকে এ রুটের লঞ্চ ও স্পিডবোট চলাচল বন্ধ রাখি। এরপর দুপুর ২টা পর্যন্ত আবাহওয়া একই অবস্থা বিরাজ করছে। বৈরি আবাওয়া কেটে গেলে লঞ্চ ও স্পিবোট চলাচল শুরু হবে। এ রুটে ৮৭টি লঞ্চ ২শতাধিক স্পিডবোট এবং ১৯টি ফেরি চলাচল করছে।
এদিকে বিআইডবিøউটিএ কাঠালবাড়ি ফেরি সকারী ম্যানেজার রুহুল আমিন জানান, সকাল থেকে ল্ঞ্চ ও স্পিডবোট চলাচল বন্ধ থাকা কারনে ফেরিতে য্ত্রাী পার করতে হচ্ছে। যে কারনে যানবাহন পারাপার ব্যাহত হচ্ছে। তাই যাত্রী চাপ সামাল দিতে মাওয়া থেকে দ্রত শিমুলিয়া প্রান্ত থেকে ফেরি এনে কাঠালবাড়ি-শিমুলিয়া রুটে যাত্রী পারাপর করতে হচ্ছে।

অন্যান্য খবর

BangaliNews24.com