BangaliNews24.com

২ মাসের মধ্যে গ্রাহকদের থেকে বিদ্যুৎ কিনবে সরকার

২ মাসের মধ্যে গ্রাহকদের থেকে বিদ্যুৎ কিনবে সরকার
জুলাই ২৯
১৭:১৭ ২০১৮

বিশেষ প্রতিনিধি : গ্রাহকদের বসানো সোলার প্যানেল থেকে বিদ্যুৎ কিনবে সরকার। আর এজন্য নতুন একটি পদ্ধতি চালু করা হচ্ছে। নতুন এই পদ্ধতির নাম ‘নেট মিটারিং সিস্টেম’। এর মাধ্যমে গ্রাহক তার প্রয়োজনীয় বিদ্যুৎ সোলার প্যানেল থেকে নেবেন। বাকি বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ করবেন। তবে গ্রাহক এই বিদ্যুতের টাকা সরাসরি পাবেন না, তার বিদ্যুৎ বিলের সঙ্গে সমন্বয় করা হবে। আগামী দুই মাসের মধ্যে এই ‘নেট মিটারিং সিস্টেম’ চালুর নির্দেশ দিয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগ।

শনিবার (২৮ জুলাই) রাজধানীর বিদ্যুৎ ভবনে নেট মিটারিং নিয়ে অনুষ্ঠিত এক সেমিনারে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়।
সেমিনারে প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই- ইলাহী চৌধুরী, বিদ্যুৎ জ্বালানি খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ, বিদ্যুৎ সচিব ড. আহমদ কায়কাউস, আরইবি চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) মঈন উদ্দিন ছাড়াও বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সেমিনারে আগামী দুই মাসের মধ্যে অন্তত ২০০ গ্রাহকের মধ্যে নতুন এই পদ্ধতি চালু করার নির্দেশ দিয়েছেন জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী। পাঁচ বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানির প্রত্যেকটিকে ২০টি করে নেট মিটারিং গ্রাহক তৈরির লক্ষ্য বেঁধে দেওয়া হয়েছে। কোম্পানিগুলোর কি পারফরম্যান্স ইন্ডিকেটরে (কেপিআই) বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করারও নির্দেশ দেন তিনি।

সেমিনারে বক্তারা বলেন, দেশের নবায়নযোগ্য জ্বালানির প্রধান উৎস হতে পারে সৌর বিদ্যুৎ। দেশের প্রত্যন্ত এলাকাতে সোলার হোম সিস্টেম বসিয়ে ২৭০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হচ্ছে। যা বিভিন্ন দেশ উদাহরণ হিসেবে নিয়েছে। কিন্তু আমাদের দেশে ভূমির অপর্যাপ্ততা রয়েছে। এ কারণে বড় সৌর বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করা কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রতি মেগাওয়াট সৌর বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য সাড়ে তিন একর জমি প্রয়োজন হয়। এভাবে ১০০ মেগাওয়াটের জন্য দরকার হয় ৩৫০ একর। সঙ্গত কারণে নেট মিটারিং জনপ্রিয়তা পেলে দেশে সবুজ জ্বালানিতে বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়বে বলে মনে করা হচ্ছে।
সেমিনারে জানানো হয়, পাওয়ার সেলের পরিচালক মো. আব্দুর রউফ মিয়া নেট মিটারিংয়ের ব্যবহারের জন্য একটি নীতিমালা তৈরি করেছেন। বিদ্যুৎ বিভাগের নবায়নযোগ্য জ্বালানি ইউনিট থেকে নেট মিটারিং সিস্টেম বাস্তবায়নে সমন্বয় করা হবে। শুরুতে বড় গ্রাহককে নেট মিটারিং ব্যবস্থায় অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। বড় সরকারি স্থাপনার ছাদসহ শিল্পকারখানার ছাদকে এ ধরনের উদ্যোগ বাস্তবায়নে বেছে নেওয়া হচ্ছে। সম্প্রতি বিদ্যুৎ বিভাগ বগুড়ায় খাদ্যগুদামের ছাদে নেট মিটারিং ব্যবস্থার পাইলট প্রকল্প চালু করেছে।
আব্দুর রউফ বাঙালিনিউজ২৪কে জানান, নেট মিটারিং সিস্টেমে গ্রাহকের এলাকায় একটি মিটার বসানো হবে। ওই মিটারে গ্রাহকের ব্যবহারের অতিরিক্ত বিদ্যুৎ চলে যাবে গ্রিডে। মাস শেষে গ্রাহক গ্রিড থেকে যে পরিমাণ বিদ্যুৎ ব্যবহার করবে তা থেকে সরবরাহ করা বিদ্যুতের দাম বা দিয়ে বিল করা হবে। এই পদ্ধতিতে গ্রাহকের বিদ্যুৎ বিলে বড় রকমের সাশ্রয় হবে। ভারত ও শ্রীলঙ্কাসহ অনেক দেশেই নেট মিটারিং সিস্টেম আছে।

অন্যান্য খবর

BangaliNews24.com